Nation

দেখা হবে কোর্টে , চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন ওমর আব্দুল্লাহ : উত্তপ্ত কাশ্মীর

কোর্টের পথে ওমর আব্দুল্লাহ , ৩৫এ ও ৩৭০ ধারার বাতিলের দাবিতে।আলাদা করা যাবে না জম্মু কাশ্মীর থেকে লাদাখ কে।

রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ জম্মু- কাশ্মীর পুনর্ঘঠন আইন কে সরকারি ভাবে সিল মোহর দিলেন এবং জম্মু কাশ্মীর ও লাদাখ কে আলাদা ভাবে কেন্দ্র স্বাসিত অঞ্চলের সরকারি অনুমতি দিলেন । শুক্রবার অর্থাৎ ৯ই আগষ্ট তার সম্মতি দিয়েছেন। বন্ধ হয়েছে সব রকমের কুট নৈতিক সম্পর্ক ,ফোরে এসেছেন পাকিস্তানে নিযুক্ত রাষ্ট্র দূত ওপর পক্ষে ভারতে নিযুক্ত রাষ্ট্র দুটি ফিরিয়ে নিয়েছেন পাকিস্তান। চূড়ান্ত অস্থিরতা উভয় দেশে।

এদিকে পাঁচদিনের মাথায় অচল কাশ্মীর কিছুটা সচল হয়েছে।তবে বহু জায়গার বিক্ষিপ্ত বিক্ষোভ চলছে , জুম্মাবারের নামাজের কথা মাথায় রেখে কার্ফু শিথিল করা হয়। তবে অতন্দ্র পাহারাতেই রয়েছে জম্মু–কাশ্মীর।তারই মধ্যে শুক্রবার দুপুরে শ্রীনগরের রাস্তায় প্রতিবাদ মিছিল বেরোয়। যা আটকাতে ভারতীয় সেনাকে টিয়ার গ্যাস ছুঁড়তে হয়।

৩৭০ ধারার লোপ এবং লাদাখকে আলাদা করে দেওয়ার সিদ্ধান্তের পর অশান্তি রুখতে অভূতপূর্ব নিরাপত্তা বলয়ে থেকে উপত্যকার জনজীবন স্তব্ধ ছিল। শুক্রবার অর্থাৎ প্রতিবাদীদের ছত্রখান করতে শূন্যে গুলিও ছুঁড়তে হয়। দিল্লির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে প্রায় ১০০০০ প্রতিবাদী মিছিলে হাঁটেন। শুক্রবারের নমাজের পরেই এই মিছিল বের হয়। বিক্ষোভকারীদের হাতে ছিল প্ল্যাকার্ড। তাতে লেখা ছিল, ‘‌আমরা স্বাধীনতা চাই। ৩৭০ ধারার লোপ আমরা মানছি না।’‌ প্রতিবাদীদের দেখেই পুলিশ টিয়ার গ্যাস ছোঁড়ে। শূন্যে গুলি চালায়। এক পুলিশ আধিকারিক বলেছেন, ‘‌শ্রীনগরের সৌরা এলাকায় বিক্ষোভকারীরা জমা হয়েছিল। তাদেরকে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।’‌ এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেছেন, ‘‌বিক্ষোভকারীদের মধ্যে কিছু মহিলা ও শিশুও ছিল। তাঁরা পুলিশের রুদ্রমূর্তি দেখে আইয়া সেতু থেকে জলে ঝাঁপ দেয়। পুলিশ দু’‌দিক থেকেই আক্রমণ করেছিল।’‌

তবে দুপুরের বিক্ষোভের পর তা বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয় উপত্যকার কিছু এলাকায় মোবাইল ও ইন্টারনেট পরিষেবা আংশিকভাবে ফিরে এসেছিল। কার্ফু শিথিল করায় স্থানীয় মসজিদে গিয়ে অনেকেই শুক্রবার নামাজ পড়েন। পাথর ছোঁড়া বা বিক্ষোভ প্রদর্শন হলেও তা মাত্রা ছাড়ায়নি। তবে মানুষ যে ক্ষুব্ধ, তা কথাবার্তাতেই স্পষ্ট।শ্রীনগরে বিক্ষোভকারীদের হটাতে টিয়ার গ্যাস ছুঁড়ল ভারতীয় সেনা।পরিস্থিতি চরমে , উদ্বেগ আর যাবেন নিয়ে দিন কাটাচ্ছেন উপত্যকার মানুষ।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close