Science & Tech

ভারতের ‘চন্দ্র-অভিযান’

২২মে ‘রিস্যাট-২বি’ উপগ্রহ উৎক্ষেপণের সময় 'চন্দ্রযান-২' উৎক্ষেপণের দিন ঘোষণা করলো ইসরো।

প্রতীক্ষার অবসান ! লোকসভা ভোটের ফল প্রকাশের ঠিক আগের দিন বুধবার ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো)-র চেয়ারম্যান কে শিবন জানালেন, আগামী ৯ থেকে ১৬ জুলাইয়ের মধ্যে ‘চন্দ্রযান-২’ উৎক্ষেপণ করা হবে। চাঁদে পৌঁছবে ৬ সেপ্টেম্বর নাগাদ।

দ্বিতীয় চন্দ্রাভিযান বা ‘চন্দ্রযান-২’ প্রকল্পকে উৎসাহিত করেছিল ইসরোর মহাকাশ অভিযানের ক্ষেত্রে প্রথম বড় সাফল্য ‘চন্দ্রযান-১’ এবং পাশাপাশি মঙ্গল অভিযানের সাফল্যও ‘চন্দ্রযান-২’ প্রকল্পকে ত্বরান্বিত করেছিল। তবে ২০১৯-এর জানুয়ারিতে উৎক্ষেপণ হওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে চলতি বছরের জুলাইয়ে উৎক্ষেপণ করা হবে।

২২মে ‘রিস্যাট-২বি ’ উপগ্রহ উৎক্ষেপণের সময় ‘চন্দ্রযান-২’ উৎক্ষেপণের দিন ঘোষণা করলো ইসরো।

ইসরো জানিয়েছে, প্রথম চন্দ্রযান এবং মঙ্গলযান, কোনওটিই ভিন্‌ গ্রহ বা উপগ্রহের মাটি না ছুঁয়ে কক্ষপথে পাক খেতে খেতেই তথ্য সংগ্রহ করেছে। কিন্তু দ্বিতীয় চন্দ্রযানে তিনটি ধাপ থাকছে। একটি কক্ষপথে পাক খাবে (অরবাইটার), দ্বিতীয়টি মাটি ছোঁবে এবং সেখানেই থিতু থাকবে (ল্যান্ডার) এবং তৃতীয় অংশটি চাঁদের গাড়ি (রোভার)। ল্যান্ডারটির নামকরণ হয়েছে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণার প্রাণপুরুষ বিক্রম সারাভাইয়ের নামে। রোভারটির নাম দেওয়া হয়েছে প্রজ্ঞান।

ইসরো সূত্র জানিয়েছে, জিএসএলভি মার্ক-থ্রি রকেট দিয়ে অন্ধ্রপ্রদেশের সতীশ ধাওয়ান মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র থেকে ‘চন্দ্রযান-২’-কে উৎক্ষেপণ করা হবে। ‘অরবাইটার’ চন্দ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০০ কিলোমিটার উপরের কক্ষপথে প্রবেশ করার পর বাকি অংশটি আলাদা হয়ে অবতরণ শুরু করবে। সেটি চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে নামবে এবং তার পরে রোভারটি বিচ্ছিন্ন হয়ে চাঁদের মাটিতে গড়াতে শুরু করবে। এই অভিযান সফল হলে ভারতই প্রথম চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছে রোভার বা গাড়ি চালাতে সক্ষম হবে। এই স্বয়ংক্রিয় গাড়ি বা রোভারটি চাঁদের মাটির রাসায়নিক বিশ্লেষণ করবে।

Show More

Related Articles

Back to top button
Close