Big Story

যাঁতাকলে ফেঁসে গেছে পাকিস্তান রাষ্ট্র সংঘে অভিযোগ জানিয়ে !

রাষ্ট্রসঙ্ঘ পাকিস্তানকে স্পষ্ট জানিয়ে দিল " দিল্লি ও ইসলামাবাদকেই আলোচনার মধ্যে সমাধান করতে হবে " . জম্মু কাশ্মীর ইস্যু দ্বিপাক্ষিক বিষয়। এই নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছতে বসতে হবে।

পাকিস্তান রাষ্ট্রসঙ্ঘে অভিযোগ জানিয়েও বিশেষ সুবিধা করতে পারল না । কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তান একঘরে ।পাকিস্তানকে রাষ্ট্রসঙ্ঘ স্পষ্ট জানিয়ে দিল, এই জম্মু কাশ্মীর ইস্যু দ্বিপাক্ষিক বিষয়। যা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে পৌঁছতে দিল্লি ও ইসলামাবাদকেই আলোচনায় বসতে হবে।

সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর আবেদনের ভিত্তিতে এমনই বার্তা দিয়েছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রেসিডেন্সি দেশ পোল্যান্ড, জম্মু কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা ইস্যুতে রাষ্ট্রসঙ্ঘে দরবার করেন ইমরান খান।তার ভিত্তিতেই এই ধরণের নির্দেশ দিয়েছে রাষ্ট্র সংঘ।

ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক, বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করার পাশাপাশি দুই দেশের যানবাহন পরিষেবাও বন্ধ করে দেয় পাকিস্তান।ভারত অনুচ্ছেদ ৩৭০ রদের সিদ্ধান্ত নিলে, কার্যত ‘বিস্ফোরণ’ ঘটে ইসলামাবাদে। এর পরিপেক্ষিতে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এক ঝাঁক কড়া পদক্ষেপ করেন পাশাপাশি অনবরত উস্কানিমূলক মন্তব্যও করতে দেখা যায়।

১) ৮ অগস্ট সমঝোতা একপ্রেস বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান।
২) জোধপুর থেকে করাচি গামী থর এক্সপ্রেস পরিষেবা বন্ধ করা হয়।
৩) ভারতের হাই কমিশনের কে ফিরে যেতে বলে এবং পাকিস্থানের হাই কমিশনার কে ফিরিয়ে নেন ‘পাকিস্তান এক তরফাভাবে
৪) কোনো আগাম আলোচনা ছাড়া
৫) পাকিস্তান যা করছে তাতে দুদেশের সম্পর্ক আরও উত্তপ্ত হচ্ছে।
৬) সমঝোতা এক্সপ্রেসের পর এবার লাহোর ও দিল্লির মধ্যে চলাচলকারী ‘দোস্তি’ বাস পরিষেবা বাতিল করে পাকিস্তান।
৭) ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বাস চলাচল প্রথম চালু হয় ১৯৯৯ সালে। কিন্তু ২০০১ সালে সংসদ ভবনে হামলার পর তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। বাস চলাচল ফের চালু হয় ২০০৩ সালে। কার্যত ৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকেই দু’দেশের সম্পর্ক কার্যত তলানিতে এসে ঠেকেছে।

এর ফলে রাষ্ট্র সংঘে যখন এই আবেদন করে পাকিস্তান সব বিষয় কে মাথায় রেখে রাষ্ট্র সংঘ এই সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে উভয় দেশ তাদের মধ্যে বসে আলোচনা সাপেক্ষে মিটিয়ে নিক। এতে সরাসরি রাষ্ট্র সংঘ হস্তক্ষেপ করবে না।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close