Big Story

রাজীবের তথ্য গুরুত্ব পেল কোর্টে

সারদা কেলেঙ্কারির তদন্তে জেরার  মুখে পড়ে রাজীব যা  তথ্য দিয়েছে  তা খুবই গূরুত্বপূর্ণ  বলে মনে করছেন  সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈর  নেতৃত্ব -এ ৩ সদস্যের বেঞ্চ। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ সারদার সঙ্গে রাজ্য সরকার -এর  যে আথির্ক লেনদেন  হয়েছিল তার প্রমান লোপাট করতে  শাসক দল কে সাহায্য করেছিল। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই তাকে শিলং -এ নিয়েগিয়ে দীঘক্ষন  জেরা করেন সিবিআই। বিধাননগর -এর পুলিশ কমিশনার ছিলেন তিনি। তার সময় অর্থৎ  ২০১২ থেকে ২০১৫  – র মধ্যেই বৃদ্ধি পায় সারদা ও রোজভ্যালির ব্যবসা  তবে সিবিআই -র অভিযোগ শুধু রাজীব কুমার -এর বিরুদ্ধে নয়  শাসক দলের  বিরুদ্ধে ও।

  • সিবিআই রাজীব কুমারকে জেরার ভিত্তিতে স্টেটাস রিপোর্ট দিল
  • “সিবিআই খুব, খুব গুরুতর কিছু বিষয় তুলে ধরেছে। তা দেখে সুপ্রিম কোর্টের পক্ষে চোখ বুজে বসে থাকা সম্ভব নয়। ” – প্রধান বিচারপতির মন্তব্য।
  • বাকি আইপিএসরা যখন মুখ্যমন্ত্রীর ধর্নামঞ্চে তখন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের হলফনামা অনুযায়ী একমাত্র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (১) জাভেদ শামিম পলিশি দায়িত্ব পালন করেছিলেন।
  • সিবিআই সূত্রের খবর, সিবিআই শীর্ষ আদালতে দশ দিন পরে যে আর্জি জানাবে তা হলো – রাজীবকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের দাবি।
  • রাজ্য পুলিশ ও প্রশাসন সিবিআই তদন্তে অসহযোগিতা করছে বলে আদালত অবমাননার মামলা করেছিল রাজীবের পাশাপাশি মুখ্যসচিব, রাজ্য পুলিশের ডিজির বিরুদ্ধেও। মুখ্যসচিব ও ডিজিকে এই মামলা থেকে রেহাই দেওয়া হোক – এই আর্জি জানান রাজ্যের আইনজীবী অভিষেক মনুসিঙ্ঘভি।
  • রাজ্যের কয়েকজন আইপিএস অফিসার ‘রাজনৈতিক ধর্নামঞ্চে’ যোগ দিয়েছিলেন, সেই বিষয়ে আজ সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিয়ে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। আসন্ন লোকসভা নির্বাচন নিরপেক্ষ ও অবাধ ভাবে পরিচালনার জন্য চার দিন আগে ২২ মার্চ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক চিঠি দিয়ে নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছে।

Show More

Related Articles

Back to top button
Close