Analysis

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের বিলে স্বাক্ষর জম্মু-কাশ্মীর পুনর্গঠনে

ঐতিহাসিক অবস্থান , জম্মু-কাশ্মীর ভেঙে তৈরি হল দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল , সত্যি কি ফিরবে হাল !

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ জম্মু-কাশ্মীর পুনর্গঠন বিলে স্বাক্ষর করে সম্মতি দিলেন ।জম্মু-কাশ্মীর ভেঙে তৈরি হল দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল- জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ, আর সেই বিলে রাষ্ট্রপতি সই করায় আর কোন বাধা রইলো না।বিধানসভা থাকবে জম্মু-কাশ্মীরে।সেই সঙ্গে লাদাখে থাকবে না।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের হাতে থাকবে পুলিস-প্রশাসন ।

জম্মু-কাশ্মীর পুনর্গঠন বিল সংসদের উভয়কক্ষে পাশ হয়েছে।৩৭০টি ভোট পড়েছে পক্ষে । ৭০ জন সাংসদ বিরোধিতা করে ভোট দিয়েছেন। কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মর্যাদা পেল লাদাখ আর জম্মু-কাশ্মীর থেকে আলাদা হয়ে পৃথক থাকবে।লাদাখবাসী স্বাধীনতার পর থেকে দাবি করে আসছিলেন কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের।এই বিলটি পাশ হওয়ায় জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ আলাদা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মর্যাদা পাবে।বিধানসভা থাকবে জম্মু-কাশ্মীরে ।

অনুচ্ছেদ ৩৭০ তোলার প্রস্তাবও সংসদে পাশ করিয়ে নিয়েছে শাসক দল। লোকসভা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ বলেছিলেন, ‘রাষ্ট্রসঙ্ঘে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে গিয়েছিলেন জওহরলাল নেহরু। ৩৭০ ধারা বিলোপ ঠিক না ভুল সেটা ঠিক করবে ইতিহাস। তবে এনিয়ে আলোচনা হলে নরেন্দ্র মোদীকে মনে রাখবেন মানুষ।’ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও জানান, ‘কাশ্মীরে আইন-শৃঙ্খলার অবনতির কারণে কারফিউ জারি করা হয়নি। পরিস্থিতির অবনতি যাতে না হয়, সে জন্য এটা সতর্কতামূলক ব্যবস্থা।’

জাতির উদ্দেশে ভাষণে নরেন্দ্র মোদী বলেছেন,’একটা পরিবার হিসেবে দেশের স্বার্থে একটা ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিয়েছি। একটা ব্যবস্থার জন্য দীর্ঘদিন ধরে বঞ্চিত হয়েছেন জম্মু, কাশ্মীর, লাদাখের ভাই-বোনেরা। তাঁদের উন্নতির পথে অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছিল। ওই ব্যবস্থাকেই তুলে দেওয়া হয়েছে।’

, ‘ দেশের অন্যত্র মহিলারা যে অধিকার পান, সেই অধিকার নেই কাশ্মীরি মহিলাদের।দেশের অন্য রাজ্যে বাচ্চাদের শিক্ষার অধিকার আছে, কিন্তু জম্মু-কাশ্মীরের বাচ্চারা বঞ্চিত।। অন্য রাজ্যে সাফাই কর্মীদের জন্য সাফাই কর্মচারি আইন রয়েছে।জম্মু-কাশ্মীরের সাফাই কর্মীরা বঞ্চিত ছিলেন। দলিতদের উপরে অত্যাচার রোখার জন্য কঠোর আইন রয়েছে দেশে। অন্য রাজ্যে সংখ্যালঘুদের জন্য সংখ্যালঘু আইন রয়েছে। । এখানেও পুলিস-প্রশাসনও বঞ্চিত হয়েছে।’

Show More

Related Articles

Back to top button
Close