Nation

আজ হতে পারে ফাঁসির শুনানি, অপেক্ষায় সারা দেশ।

পেরিয়েছে অনেক গুলি বছর, কিন্তু হচ্ছে না শাস্তি, তবে আশা করা হচ্ছে এবারে হবে সকল অপেক্ষার অবসান।

@ দেবশ্রী : কেটে গেছে দীর্ঘ আট বছর। তবুও শাস্তি পায়নি নির্ভয়ার দোষীরা। বিচারের আশায় পেরিয়েছে অনেক গুলো বছর, কিন্তু এখন যেন একেবারে দোরগোড়ায় এসে থমকে আছে বিচার। ফাঁসির সাজা ঘোষণা হওয়ার পরেও একের পর এক অজুহাতে তারিখ পিছিয়ে যাচ্ছে, স্থগিত হচ্ছে। আইনের ফাঁকফোঁকর খুঁজে তা কাজে লাগিয়ে চলেছেন অপরাধী পক্ষের আইনজীবীরা।

এই অবস্থায় নির্ভয়াকে ধর্ষণ ও তাঁর নির্মম হত্যাকাণ্ডে চার অপরাধী মুকেশ সিং, বিনয় শর্মা, পবন গুপ্তা ও অক্ষয় ঠাকুরের বিরুদ্ধে নতুন করে গ্রেফতারি পরোয়া জারির আবেদন জানানো হয়েছে। আজ, সোমবার, দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্টে সেই মামলারই শুনানি হবে। গত জানুয়ারি মাস থেকে দু’বার তারিখ ঠিক হওয়ার পরেও পিছিয়ে গেছে ফাঁসির তারিখ। এর পরে গত ১১ই ফেব্রুয়ারি নির্ভয়ার বাবা মা ও দিল্লি সরকার আদালতের দ্বারস্থ হন। চার অপরাধীর ফাঁসির নতুন দিন ঠিক করার দাবিতে পিটিশন দায়ের করেন।

প্রথমে ২২ জানুয়ারি ও তার পরে ১ ফেব্রুয়ারি নির্ভয়া-কাণ্ডের চার দোষীর ফাঁসি চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ৩১ জানুয়ারি দিনের শেষে আসে মন ভেঙে দেওয়া খবর। দিল্লি পাতিয়ালা হাউস কোর্টের নির্দেশে স্থগিত হয়ে যায় আসামিদের ফাঁসি। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত ফাঁসি হবে না বলেই জানিয়েছিল আদালত। তার আগে, নির্ভয়া মামলার শেষ শুনানিতে তিহার জেল কর্তৃপক্ষ আদালতকে জানিয়েছিল, অপরাধী পবন গুপ্তা জানিয়েছে যে তার কোনও আইনজীবীর প্রয়োজন নেই। এরপর আদালত সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহতাকে জানায়, পবন ছাড়া বাকি তিন জন অপরাধীরই প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ হয়ে গিয়েছে।

এখন প্রশ্ন উঠেছে, এর পরেও কেন হচ্ছে না অপরাধীদের ফাঁসি? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একই অপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত একাধিক অপরাধীর একই সঙ্গে ফাঁসি দিতে হবে বলেই আইনের নিয়ম। আলাদা আলাদা করে ফাঁসি দেওয়া সম্ভব নয়। কারন আবার প্রাণভিক্ষার আর্জি খারিজ হলে, তার পরে ন্যূনতম ১৪ দিনের আগে ফাঁসির আদেশ কার্যকর করা যায় না। আর নির্ভয়া-অপরাধীরা এই সুযোগকেই কাজে লাগাচ্ছে। আলাদা আলাদা করে একের পর এক আর্জি জানিয়ে চলেছে তারা। ফলে বারবার পিছিয়ে যাচ্ছে ফাঁসির দিন। তবে এখন যা পরিস্থিতি, তাতে তিন দণ্ডিত- বিনয়, মুকেশ সিংহ এবং অক্ষয় ঠাকুরের সামনে আর কোনও আইনি পথ খোলা নেই বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আর এক দণ্ডিত পবন গুপ্ত আগেই জানিয়ে দিয়েছে, সে কোনওরকম প্রাণভিক্ষার আর্জি করবে না। সুপ্রিম কোর্ট-সহ কোনও আদালতেই অপরাধীদের তরফ থেকে আর কোনও আবেদনও পড়ে নেই। তাই মনে করা হচ্ছে, আজই ফের ঘোষণা হতে পারে ফাঁসির তারিখ। সবাই অপেক্ষায় রয়েছে বিচারের।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close