Economy Finance

নিজেদের মাসিক বেতনের দাবিতে, প্রতিবাদের পথে এবার জম্যাটো ডেলিভারি বয়রা।

কর্তৃপক্ষ দিচ্ছে না মাসের বর্ধিত টাকা, দাবি না মানা হলে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন সংস্থার কর্মীরা।

@ দেবশ্রী : অ্যাপ নির্ভর খাদ্য সরবরাহকারী সংস্থা জম্যাটো বয়রা এবার নামলো প্রতিবাদের পথে, মিলছে না তাদের বেসিক পে। সংস্থার প্রায় তিনশো জন কর্মীর বেসিক পে বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। আর তাই তার প্রতিবাদে, কাজ বন্ধ করে বিক্ষোভ আন্দোলনে নামলেন জম্যাটোর সোদপুর জোনে কর্মরত প্রায় তিনশো জন কর্মী। কর্মীরা দাবি করেন, কর্তৃপক্ষ গত ৯ ডিসেম্বর থেকে হঠাত্‍ করেই তাঁদের বর্ধিত বেতন বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে নানান সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাঁদের। কর্মীরা জানান, এই অবস্থায় কোম্পানি যদি তাঁদের দাবি না মানেন, তাহলে তারা ভবিষ্যতে আরও বৃহত্তর আন্দোলনের পথে হাঁটবে।

জম্যাটোর টিটাগড় থেকে বেলঘড়িয়া পর্যন্ত সোদপুর জোন। এই জোনের মধ্যে রয়েছে, টিটাগড়, খড়দহ, সোদপুর, পানিহাটি, আগরপাড়া, বেলঘরিয়া, ডানলপ, নিউ বারাকপুর। মাধ্যমিক পাশ যোগ্যতায় ডেলিভারি বয় হিসাবে এই জোনে কাজ করে প্রায় তিনশো জন কর্মী। এই সংস্থার কর্মীদের অভিযোগ,গত ৬ ডিসেম্বর এই কর্মীদের ফোনে একটি বিজ্ঞপ্তি আসে যে, ৯ ডিসেম্বর থেকে কর্মীদের বর্ধিত বেতন বন্ধ করা হবে। যা নিয়ে একটি ব্যাপক ক্ষোভ তৈরি হয় সোদপুর জোনের ডেলিভারি বয়দের মধ্যে।

নোটিশ পাওয়ার পরই সোদপুর জোনের কর্মীরা জম্যাটো কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এই বেতনের বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন। কিন্তু, কর্তৃপক্ষ তাদের বর্ধিত বেতন দিতে পারবে না বলে সাফ জানিয়ে দেয়। আন্দোলনকারী কর্মীদের অভিযোগ, তাদের বর্ধিত বেতন বন্ধের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার থেকে সোদপুর জোনের সমস্ত জম্যাটো কর্মীরা তাদের কাজ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ফলে এই জোনের সমস্ত এলাকায় খাবার সরবরাহ বন্ধ রেখেছে জম্যাটোর ডেলিভারি বয়রা।

বিক্ষোভকারী জম্যাটো কর্মীদের বক্তব্য ‘হঠাত্‍ করেই আমাদের সোদপুর জোনে এম জি তুলে দেওয়া হয়েছে, এবং আমাদের বেতন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এম জি না দিলে আমরা খাবার ডেলিভারি দিতে পারব না। কারন, এম জি না দিলে আমাদের হাতে মাসের শেষে মাত্র ৪ হাজার টাকা থাকবে। এই টাকা দিয়ে আমাদের কাজ চালানো সম্ভব হবে না। তাই আমরা আমাদের প্রাপ্য বেতন দাবি করছি যেটা বন্ধ করে দিচ্ছে জম্যাটো কর্তৃপক্ষ।’ যদিও এই বিষয়ে জম্যাটো কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এখনও পর্যন্ত কোনও রকম প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close