Industry & Tread

প্রত্যেক সোনার গয়নায় এবার থেকে হলমার্ক বাধ্যতামূলক, কিন্তু বিপদে পড়লেন মফস্বলের ব্যবসায়ীরা।

সোনার গয়নায় অনেকেই হলমার্কের নামে বেশি টাকা আদায় করে, তাই গ্রাহকদের ভণ্ডামি থেকে বাঁচাতে সব গয়নায় হলমার্ক।

@ দেবশ্রী : সোনার গয়না অনেকেই হলমার্ক ছাড়া বিক্রি করে থাকেন। কিন্তু বলেন হলমার্কের গয়না। এর জন্যে গ্রাহকরা ভয় পেয়ে থাকেন। তাই এবার থেকে সোনার গয়নায় হলমার্কিং বাধ্যতামূলক হয়ে গেল। মঙ্গলবার এক বিবৃতি প্রকাশ করে এমনটাই জানিয়ে দেয় কেন্দ্রীয় ক্রেতা সুরক্ষা দফতর। তবে এর জন্য সব স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা এক বছর সময় হাতে পাবেন। এখন মজুত থাকা সোনা বিক্রি করতে এবং ব্যুরো অব ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডসে নাম নথিভুক্ত করতে এক বছর সময় দেওয়া হয়েছে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের।

স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের ২০২১-এর ১৫ জানুয়ারির মধ্যে এই সংক্রান্ত যাবতীয় কাজ সেরে ফেলতে হবে। এর পরে হলমার্ক ছাড়া কোনো গয়না বিক্রি করা যাবে না। কেন্দ্রীয় সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী, সোনার গয়না এখন থেকে ১৪ ক্যারেট, ১৮ ক্যারেট ও ২২ ক্যারেট হিসাবেই অনুমোদিত হবে। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ক্রেতা সুরক্ষা মন্ত্রী রামবিলাস পাসোয়ান বলেন, ”গয়না বা সোনার জিনিস কেনার সময়ে সাধারণ মানুষ যাতে ঠকে না যান, তার জন্যই হলমার্কিং বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। বাজারে ১৪, ১৮ এবং ২২ ক্যারাটের হলমার্ক বসানো গয়নাই পাওয়া যাবে। তাতে ক্রেতারা গয়নার গুণমানও জানতে পারবেন আবার দুর্নীতিও দূর করা সম্ভব হবে।”

তবে এই হলমার্ক ব্যাধ্যতামূলক করার জন্যে ছোট ছোট ব্যবসায়ী যারা মফস্বলে থাকেন তাদের অসুবিধা বলে জানাচ্ছে স্বর্ণব্যবসায়ীরা। সারা দেশে হলমার্কের জন্য মোট ৮৯২ টি ল্যাব রয়েছে। দেশের ২৩৪টি জায়গায় রয়েছে এই সমস্ত ল্যাবগুলি। আর সেখান থেকেই সোনার হলমার্কের কাজ হয়ে থাকে। এনিয়ে অনেক আগে থেকেই ক্ষোভ রয়েছে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের। তাঁদের বক্তব্য, গয়নার দোকানের তুলনায় হলমার্কের ল্যাবের সংখ্যা অনেক কম। এর ফলে ব্যবসায়ীদের সমস্যা আরও বৃদ্ধি পাবে।

বড় শহরে হলমার্কের ল্যাব থাকলেও মফস্বলের ব্যবসায়ীদের খুবই সমস্যায় পড়তে হয়। তাই হলমার্ক বাধ্যতামূলক করলে ছোট ব্যবসায়ীরাই সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়বেন। যাঁদের ছোট ব্যবসা তাঁদের একটি বা দু’টি গয়নার জন্য বড় শহরে আসার খরচ করতে হবে। এর উপরে রেজিস্ট্রেশনের খরচ রয়েছে। সব মিলিয়ে রীতিমতো চাপেই পড়তে হবে ছোট ব্যবসায়ীদের। তবে ক্রেতাদের জন্য সুদিন এল। কারণ, অনেক অসাধু ব্যবসায়ী ২২ ক্যারাট সোনার দাম নিয়ে ১৮ ক্যারাট সোনা দিয়ে থাকেন। হলমার্ক বাধ্যতামূলক হলে এই চুরি বন্ধ হবে। কিন্তু এই নিয়মের ফলে একদিকে যেমন রক্ষে তেমনই অপরদিকে ঘনিয়ে আসছে সমস্যা। ছোট ছোট স্বর্ণব্যবসায়ীদের জন্য দেখা দিয়েছে একটু সমস্যা।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close