West Bengal

বিক্ষোভকারীদের সাথে পাশে থাকার বার্তা দিলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।

আইন শৃঙ্খলা মেনেই শান্তিপূর্ণভাবে অবরোধ করার কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী মহাশয়া।

@ দেবশ্রী : বৃহস্পতিবার রাতে বিলে সই করেন রাষ্ট্রপতি। পাশ হয়ে যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। কিন্তু এই আইনের বিরোধিতায় উত্তপ্ত রাজ্যের একাধিক জায়গা। রাজ্যে চলছে ট্রেন অবরোধ। প্রতিবাদে মানুষ নেমেছেন রাস্তায়। এই সময় দীঘা থেকে ফিরে তড়িঘড়ি করে, প্রশাসনিক কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশ্যে মুখ্যমন্ত্রী বার্তা দেন, এই স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনের পাশে আছি। কিন্তু অযথা কেউই আইন-শৃঙ্খলা নিজের হাতে তুলে নেবেন না।

এই আইনের বিরোধিতায় বিক্ষোভে উত্তাল রাজ্যের বিভিন্ন এলাকা। শুক্রবার দিঘা থেকে ফিরেই রাজ্যের পরিস্থিতি নিয়ে নবান্নে বৈঠকে বসেন মুখ্যমন্ত্রী। পরে এডিজি আইন-শৃঙ্খলা জানান, উলুবেড়িয়া ও বেলডাঙায় দুটো ঘটনা ঘটেছে। রেল সাহায্য চেয়েছিল। ঘটনাস্থলে পুলিশকে পাঠানো হয়েছে।

মুখ্যমন্ত্রীর বার্তা, এই স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনের পাশে আছি। কিন্তু কেউ আইন-শৃঙ্খলা নিজের হাতে তুলে নেবেন না। শান্তি ও সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় রাখুন। বিক্ষোভের নামে বিশৃঙ্খলা যে কাম্য নয়, তা বুঝিয়ে দিয়েছেন মন্ত্রী ও মেয়র ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেন, ”যারা এই ধরনের রাস্তা আটকাচ্ছে, তারা বিজেপির হাত শক্ত করছে। বাংলা সেকুলার জায়গা। এখানে মস্তানি করা ঠিক হয়নি। যদি দম থাকে তো অমিত শাহ-এর বাড়ির সামনে গিয়ে করুন।” এই বিষয়ে শান্তির বার্তা দিয়েছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। বলেন,”আমি সবাইকে হাতজোড় করে আবেদন করছি,শান্তি ভঙ্গ করবেন না। হিংসা থেকে দূরে থাকি। সংবিধানে ভরসা রাখা উচিত। সংসদের আইনে ভরসা রাখুন। এখানকার মানুষ শান্তিপ্রিয়। আইন মেনে চলুন। সকলকে করজোড়ে আবেদন করছি।”

শুক্রবার নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রতিবাদে উত্তপ্ত হয়েছে রাজ্যের একাধিক জায়গা। সকাল থেকে অশান্তি শুরু হয় মুর্শিদাবাদে। জাতীয় সড়ক ও রেললাইন অবরোধ করে বিক্ষোভ হয় বেলডাঙায়। বিপর্যস্ত হয় শিয়ালদহ-লালগোলা শাখায় ট্রেন পরিষেবা। উলুবেড়িয়াতে করমণ্ডল এক্সপ্রেসকে লক্ষ্য করে ঢিল ছোড়়ে বিক্ষোভকারীরা। এদিকে কলকাতার পার্ক সার্কাসে রাস্তা অবরোধ করে টায়ার জ্বালিয়ে দেখানো হয় বিক্ষোভ। তার জেরে দেখা দেয় রাস্তায় দীর্ঘক্ষণ যানজট।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close