West Bengal

ভাইপোতে নেই ভরসা , শোভন কে ফেরাতে ৪ ঘণ্টার বৈঠকে পার্থ !

শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক হল । কিছু দিন আগে ববি হাকিম ফোনে কথা বলেছিলেন " দলের বিপদের দিন ফিরে আয় "

তিন সাপ্তাহ আগে মমতা বন্ধ্যোপাধযায়ের বেক্তিগত সচিব রতন মুখোপাধ্যায় এক রবিবার সকালে ঘন্টা দুয়েক আলোচনা করেন দলে ফেরার ব্যাপারে। কিন্তু তার পর কোন তাপ-উত্তাপ নেই শোভনের। দিল্লি সম্প্রতি গেছিলেন শোভন-বৈশাখী , গুঞ্জন ছড়িয়েছে বিজেপির শীর্ষনেতাদের সাথে বৈঠক হয়েছে। তবে কোন পক্ষই মুখ খোলেন নি।

মঙ্গলবার রাতে শোভনের গোলপার্কের বাড়িতেই এই বৈঠক হয়েছে বলে খবর। শোভনকে ফের তৃণমূলের জন্য সক্রিয় করে তুলতেই যে মাঝ রাতে প্রাক্তন মেয়রেরবাড়িতে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রীর ছুটে যাওয়া, তা নিয়ে রাজনৈতিক শিবিরের সংশয় নেই। কিন্তু ঠিক কী কথা শোভনের সঙ্গে পার্থের হয়েছে, সে বিষয়ে কোনও পক্ষই মুখ খোলেনি।

একটু গোপনে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় মঙ্গলবার রাত পৌনে ১০টা নাগাদ শোভনের বাড়ি যান বলে জানা গিয়েছে।শোভনের বাড়ি থেকে রাত দেড়টার পরে তাঁকে বেরোতে দেখা গিয়েছে।

রাজনৈতিক সমালোচকরা বলছেন এটা কোন সৌজন্য নিমন্ত্রণ নয় ,রাজনৈতিক সমঝোতার বৈঠক। প্রথমে ববি , তারপর রতন বাবু এর পর শিক্ষামন্ত্রী তথা তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। রাজনৈতিক মহলে কৌতূহল যে ওই রাতে কি হরিশ চ্যাটার্জীর কর্তীর সাথে কথা কি হয়েছে , না পার্থ বাবু জল মাপার কাজ করলেন। এক সময়ের ভিন্ন্য মেরুতে দাঁড়িয়ে দীর্ঘ ৭ বছর রাজ্য সরকারের কাজের দুই মুখ ছিলেন। কিন্তু সময়ের ফের পার্থ বাবু শোভনের বাড়িতে দলের জন্য দরবার করে এসেছেন ।

প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শ দলের বিবাদে বহু নেতা দল বিমুখ হয়েছেন তাই ওদের ফেরাবার নিদানে দিদির সিলমোহর পড়েছে তাই রাত ১.৩০ মিনিটে বেড়াতে হয় শোভনের বাড়ি থেকে পার্থ চট্টোপাধ্যায় কে ।

রাজনৈতিক বিষেশজ্ঞরা মনে করেন কলকাতা পৌরসভাতে ৬০% পৌর সদস্য শোভনের দ্বারা পরিচালিত হন। তাই তারা বিজেপির দিকে চলে না যায় তার একটা বার্তা দিতে চাইছে। তবে নারোদা বা সারদার সিবিআই তদন্তের পরই দূরত্ব ঘটেছে দলের সাথে শোভন। সূত্রের খবর অভিষেকের ওপর দিদির নির্ভরতা যত বেড়েছে তত দূরত্ব বেড়েছে দলের পুরোনো নেতাদের। অভিযোগ অনেক ক্ষেত্রেই প্রাধান্য পাইনি দলের পুরাতন সৈনিকরা।

এই ক্ষেত্রে শোভন বৈশাখী যদি তৃণমূলে ফিরে যান তাহলে কি হবে ?
১) এনফোর্সমেন্ট ডিপার্টমেন্ট , সিবিআই আবার ডাকা ডাকি করতে পারে
২) তদন্তের স্বার্থে হেপাজতে নিতে পারে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা
৩) ববি এখন মেয়র, তাহলে শোভন পৌর পিতা থেকে বিধায়ক। ওর কি পুরানো সন্মান ফেরাবে দল।
৪) দমকল মন্ত্রীর পদও গেছে , তবে রয়েছে ওই পুরানো নিরাপত্তা। জেট ক্যাটাগরী তুলে নেওয়া হয়েছে দিদির সাথে মতবিরোধের পর।
৫) পারিবারিক সমস্যায় দল শোভনের বিপক্ষে সিধান্ত নিয়ে ছিল।
সব মিলিয়ে আশাবাদী নন কেওই যে শোভন বৈশাখী ফিরবে দলে।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close