Weather

ভয়াবহ তুষারধসে আক্রান্ত জম্মু-কাশ্মীর, প্রাণ হারিয়েছেন ৮ জন !

চলছে উদ্ধার কার্য, কিন্তু সাহায্য করছে না প্রকৃতি। ক্রমশই অবনতি হচ্ছে আবহাওয়ার।

@ দেবশ্রী : মানুষের প্রাণ এখন বিপদে। জম্মু কাশ্মীরে হচ্ছে ভয়াবহ তুষারধস। আর তার জেরেই প্রাণ হারায় ৮ জন ! আর এর মধ্যে তিনজন সেনা জওয়ান। তুষারধসের পরিমান যেন ক্রমশই বেড়ে চলেছে। কুপওয়ারাতে মাছিল সেক্টরে তুষারধসে ওই তিন সেনা জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। জানা যাচ্ছে, এখনও নিখোঁজ রয়েছেন আরও দুই সেনা জওয়ান।

অন্যদিকে অপর তুষারধসের খবর এসেছে, গগনগীরের কাছে কুলান গ্রামে। সেখানে তুষারধসে ৫ জনের মৃত্যু ঘটেছে। সেন্ট্রাল কাশ্মীরের গান্দেরবাল জেলার সোনমার্গে ওই গ্রামটি অবস্থিত। ইতিমধ্যেই উদ্ধারকাজ শুরু করে দিয়েছে ওই এলাকার সেনা এবং পুলিশেরা।

গত সপ্তাহেই জম্মু ও কাশ্মীরের পুঞ্চ জেলায় নিয়ন্ত্রণ রেখায় তুষারধসে সেনাবাহিনীর একজনের মৃত্যু হয়। পাশাপাশি আরও তিনজনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়। ওই তুষারধস শাহপুর সেক্টরে আঘাত হেনেছিল। যার জেরে আটকে পড়ে সেনাবাহিনীর মালবাহকেরা। সূত্র অনুযায়ী, এরপর দ্রুত শুরু করা হয় উদ্ধারকাজ। যারা আটকে পড়েছিল তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে একজনের মৃত্যু হয় বলে জানা গিয়েছে।

একদিকে যেমন, জম্মু কাশ্মীরের উঞ্চু অঞ্চলগুলি এবং লাদাখ মারাত্মক তুষারপাতের মুখোমুখি হয়, অন্যদিকে ওই রাজ্যের সমভূমি অঞ্চল মুখোমুখি হয় ব্যাপক বৃষ্টির। লাদাখ এলাকায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিভিন্ন অঞ্চলে স্বল্প-ঝুঁকিপূর্ণ তুষারপাতের সতর্কতা জারি করা হয়েছে। পাশাপাশি যে এলাকাগুলি ঝুকিপূর্ণ সেই এলাকাগুলিকে সাধারণ মানুষকে এড়িয়ে যাওয়ার জন্য সতর্ক করা হচ্ছে বারংবার।

এর আগে ডিসেম্বরে প্রথম সপ্তাহে তুষারধসের কবলে পড়ে প্রাণ হারায় তিন জওয়ান। কুপওয়ারার তংধরে একটি সেনা শিবিরের উপর আছড়ে পড়েছিল ওই তুষারধস। এই এলাকায় উল্লেখযোগ্য বিষয় হল প্রতিকূল আবহাওয়া। সমুদ্রতল থেকে ২০ হাজার ফুটের উচ্চতায় ভারতীয় সেনাকে একদিকে যেমন শত্রুপক্ষের সঙ্গে লড়তে হয়, অন্যদিকে তেমন ভাবে নজর রাখতে হয় প্রতিকূল আবহাওয়ার দিকেও। শীতের সময় তাপমাত্রা নেমে যায় -৬০ ডিগ্রি পর্যন্ত।

আর সেখানে আবারও শোকের ছায়া। প্রবল তুষারপাত, কেড়ে নিচ্ছে মানুষগের জীবন। আর সময় যত পার হচ্ছে ততই যেন ভয়ঙ্কর রূপ নিচ্ছে এই তুষারধস। তবে উদ্ধারকার্য চলছে।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close