Youth

মায়ের অবহেলার কারনে, টিকটক ভিডিও করতে গিয়ে গুলি খেয়ে মৃত্যু কেশবের !

বন্দুক কখনও খেলার বস্তু হতে পারে না, তার নিয়ে খেললে প্রাণ যায়। আর ঠিক তাই হল, হাতের মধ্যে বন্দুক আসতেই অজান্তে নিজেকে গুলি করল কেশব !

@ দেবশ্রী : আজকের এই প্রজন্ম টিকটক নিয়ে বড়ই মত। কিন্তু এই টিকটক-ই কেড়ে নিল এক কিশোরের প্রাণ। টিকটক ভিডিও বানাতে গিয়েই নিজের মাথায় গুলি করে ফেলল এক কিশোর। এ ঘটনাটি ঘটে, উত্তরপ্রদেশের বরেলির মুদিয়া ভিকামপুর গ্রামে। সূত্রের মাধ্যমে জানা যায়, ১৮ বছরের কেশব কুমার সোমবার বিকেল পাঁচটা নাগাদ স্কুল থেকে ফিরে মা সাবিত্রী দেবীর কাছ থেকে তাঁর পিস্তল চেয়েছিল। আর সেই পিস্তলের গুলি লেগেই মারা যায় কেশব।

সাবিত্রী দেবী জানিয়েছেন, তাঁর পিস্তলের লাইসেন্স রয়েছে। পেশায় সেনা জওয়ানের ছেলে ক্লাস টুয়েলভের পড়ুয়া কেশবের টিকটক ভিডিও বানানোর খুব নেশা ছিল। সে প্রায়ই, টিকটকে ভিডিও বানিয়ে সেটি সোশ্যাল মিডিয়াতে শেয়ার করত। সাবিত্রী দেবী পুলিশকে জানান যে তিনি প্রথমে পিস্তল দিতে রাজি ছিলেন না, কিন্তু কেশব খুব বায়না করছিল বলে শেষ পর্যন্ত আলমারি থেকে বের করে তাকে দিয়েছিল। তারপর তিনি রান্না ঘরে যান আর কিছুক্ষনের মধ্যেই গুলি চলার শব্দ পান এবং ঘরে ঢুকে দেখেন, মাটিতে পড়ে রয়েছে কেশব। ওর মাথা থেকে রক্ত বেরিয়ে চারদিক ভেসে যাচ্ছে। সঙ্গে সঙ্গে ওকে বরেলির একটা বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে,সেখানে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

সূত্রের মাধ্যমে জানা যায়, কেশবের বাবা বীরেন্দ্র রুরকিতে কর্মরত। তাঁর দুই সন্তান। কেশব ছোট। তার দিদির নাম প্রিয়াংশি। সাবিত্রী দেবী জানিয়েছেন, তিনি জানতেনই না পিস্তলটিতে গুলি রয়েছে। জানলে কিছুতেই তা কেশবের হাতে দিতেন না। পুলিশ প্রাথমিকভাবে অনুমান করছে যে, পিস্তলটি নিজের ডানদিকের কাঁধে নিয়ে টিকটক ভিডিও করছিল কেশব। তখনই কোনওভাবে পিস্তল থেকে গুলি ছিটকে তার মাথায় লাগে। কেশবের ঘরে কাঁধে বন্দুক নিয়ে অনেক জওয়ানের ছবি টাঙানো রয়েছে। সেভাবেই ভিডিও তুলতে গিয়েছিল সে, আর তখনই ঘটে যায় দুর্ঘটনা।

নবাবগঞ্জ পুলিশ থানার সার্কেল অফিসার যোগেন্দ্র যাদব জানিয়েছেন, ‘কেশবের পরিবার জানিয়েছে, দেহের ময়নাতদন্ত করার প্রয়োজন নেই। পিস্তলটি সাবিত্রী দেবীর নামে রয়েছে। সেটি তাঁর আলমারিতেই রাখা থাকত।’ কিন্তু তারপরেও এই ঘটনায় একটি এফআইআর দায়ের করেছে পুলিশ। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে তারা। এখনও পর্যন্ত এই ঘটনায় কোনো নতুন তথ্য পাওয়া যায়নি।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close