Analysis

শপথ গ্রহণের পর শুরু হচ্ছে উদ্ধব ঠাকরের অগ্নিপরীক্ষা।

নিজের অভিন্ন কর্মসূচি নিয়ে তৈরী শিবসেনা। কতটা সফল হবেন তাঁরা ?

@ দেবশ্রী : গতকাল বৃস্পতিবার সন্ধ্যে, সারা মহারাষ্ট্রের সামনে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করলেন, উদ্ধব ঠাকরে। আর দায়িত্ব নেওয়ার পরেই ধর্মনিরপেক্ষ ও সম্মিলিত সরকার গঠনের ডাক দিয়েছেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। শিবাজি পার্কের ঝাঁ চকচকে আয়োজনে শপথ গ্রহণের পরই প্রথম মন্ত্রিসভার বৈঠকেই উদ্ধব ঠাকরে রায়গড়ে শিবাজি দূর্গে ২০ কোটি টাকার সংরক্ষণ জনিত প্রকল্পের ঘোষণা করেন। এই মুহূর্তে, গোটা মহারাষ্ট্র একাধিক আশা নিয়ে তাকিয়ে রয়েছেন তাদের নতুন মুখ্যমন্ত্রীর দিকে। তারা অপেক্ষা করছেন, শিবসেনার অভিন্ন ও নূন্যতম কর্মসূচির।

ইতিমধ্যেই নিজের কাজ তিনি বেছে নিয়েছেন যেগুলি যত দ্রুত সম্ভব করতে হবে। কোন খাতে ‘স্থায়ী স্থানীয় বাসিন্দা’র তত্ত্ব বিবেচনা করা হবে সেই নিয়ে রয়েছে বড় প্রশ্ন। শিবসেনা নেতা একনাথ শিন্ডে এই স্থায়ী স্থানীয় বাসিন্দার তত্ত্ব ঘিরে জানিয়েছেন যে মহারাষ্ট্রে যাঁরা গত ১৫ বছর ধরে রয়েছেন , তাঁরা নিজেদের বাসিন্দা হওয়ার সমর্থনে নথি দেখালেই ‘স্থানীয় ‘ হিসাবে বিবেচিত হবেন। পাশাপাশি, যাঁরা মহারাষ্ট্রে জন্মেছেন অবশ্যই তাঁদেরকেও জন্মের নথিপত্র দেখতে হবে। তাহলেই তাদেরকে স্থানীয় বাসিন্দা হিসাবে নির্বাচন করা হবে।

মহারাষ্ট্রে শিবসেনা নির্বাচনের আগেই নিজেদের প্রকাশিত অভিন্ন ন্যূনতম পরিকল্পনা ঘোষণাপত্রেই জানিয়ে দিয়েছিল , মহারাষ্ট্রের প্রাইভেট সেক্টরগুলিতে স্থানীয়দের ৮০ শতাংশ চাকরি দেওয়ার জন্য তাঁদের পার্টি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আর সেই চ্যালেঞ্জই কতটা পূর্ণ করতে পারবেন উদ্ধব ঠাকরে মুখ্যমন্ত্রীপদে বসবার পর তাই দেখার বিষয়। এটি শুধুমাত্র একটা বড় পদক্ষেপই না, বড় অগ্নি পরীক্ষা শিবসেনা জোটের সরকারের কাছে।

মুম্বাইয়ে খরচের পরিমান খুব বেশি। একবেলা বাইরে থেকে পেটভরা কিছু খাবার কিনে খেতে গেলেই লেগে যায় বহু মূল্য। কিন্তু এবারে সেই বিষয়ে তিনি নিতে চলেছেন পদক্ষেপ। এখন থেকে পেটভরা খাবার দিয়ে সাজানো থালি ১০ টাকায় মিলবে মুম্বইয়ের রাস্তায়। এমন ঘটনা মুম্বইয়ের মতো ব্যায়বহুল শহরে ভাবাটাও খুব কঠিন ! তবে সেই কঠিন কাজকেই এবার সহজ করার ডাক দিয়েছিল শিবসেনা। এবার মহারাষ্ট্রের ১৯ তম মুখ্যমন্ত্রীর কাছে সেটাও একটা বড় পরীক্ষা। এমন কাজ কিভাবে সিদ্ধ করবেন তা সত্যিই দেখার মতো।

লোকসভার ভোট হয়ে যাওয়ার পর-পরই অযোধ্যায় গিয়ে রাম মন্দির গড়ার জন্য তত্‍কালীন এনডিএ শরিকদল বিজেপির ওপর চাপ বাড়িয়েছিলেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে উদ্ধব জানান নিজের বক্তব্য। ঘটনার কয়েকমাস বাদেই মহারাষ্ট্রে সরকার গঠন করে উদ্ধব ঠাকরে সাফ জানিয়ে দেন যে মহা বিকাশ আঘাড়ি জোটের সরকার ধর্মনিরপেক্ষ ও সম্মিলিতভাবে সাংবিধানিক নিয়ম পালনে ব্রতী। কোনও মতেই ধর্মের ভিত্তিতে নেওয়া হবেনা কোনও সিদ্ধান্তকে।

অর্থাৎ মনে করা হচ্ছে সমস্ত রকম প্রস্তুতি নিয়েই নেমেছেন, মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। এখন এটাই দেখার বিষয়, নির্বাচনের আগে তিনি যে পদক্ষেপ গুলি নেওয়ার কথা বলেছিলেন সেগুলি কতটা সফলভাবে, তিনি তা পূর্ণ করতে পারেন। নাকি ক্ষমতায় এসে কিছুদিন পর ভুলে যাবেন সব কাজের প্রতিজ্ঞা ? তবে আশায় রয়েছেন মহারাষ্ট্রবাসী।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close