Women

সিভিক ভলেন্টিয়ারের সাহসে, মান বাঁচে মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলার।

দিন দিন বাড়ছে অন্যায় এর সংখ্যা। অন্যায়কে রুখতে সামনে এগিয়ে আসতে হবে সাধারণ মানুষকে, বললেন বিকাশ গড়াই।

@ দেবশ্রী : কিছু মানুষের মনের মধ্যে যে কোনো ভয়-ডর বলে কিছু নেই, তারা যে নৃশংস তার আবারো প্রমান পাওয়া গেল। গত সপ্তাহে ঘটে যাওয়া হায়দরাবাদের ঘটনা নিয়ে উত্তপ্ত রয়েছে জনতা। হায়দরাবাদের ঘটনার মতোই পূর্ব বর্ধমানে ট্রাক চালকের নৃশংস নির্যাতনের শিকার হতে হত আরও এক মহিলাকে। পরিস্থিতি গড়িয়েওছিল সেই দিকে। তবে সৌভাগ্যবশত তা হয়নি। কর্তব্যরত এক সিভিক ভলান্টিয়ারের সাহস এবং উপস্থিত বুদ্ধিতে মান বেঁচে যায়, মহিলার। গ্রেফতার করা হয়েছে সেই ট্রাক চালককে। আউশগ্রামের গুসকরায় শিরিষতলার রাস্তা শুনশান। ঘড়ির কাঁটায় তখন রাত ১২টা। সেখানে টোলট্যাক্সের কাছে দেখা যায় এক মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলাকে। আর তারই সুযোগ নিতে চাওয়া হয়েছিল।

ওই চত্বরেই ঘুরে বেড়ান তিনি। পুলিশ জানান, ঘটনার দিনও টোলট্যাক্সের কাছেই বসেছিলেন মহিলা। সেই সময় সেখানে একটি সিমেন্ট বোঝাই একটি ট্রাক এসে থামে। গাড়ি থেকে নেমে চালক জোরজবরদস্তি করে মহিলাকে গাড়িতে তোলার চেষ্টা করে। মহিলাকে টেনে হিঁচড়ে গাড়িতে তোলার চেষ্টা করে। ঠিক সেই সময়েই ঝাঁপিয়ে পড়েন কর্তব্যরত এক সিভিক ভলান্টিয়ার বিকাশ গড়াই। সিভিক ভলান্টিয়ার বিকাশ এর বক্তব্য অনুযায়ী, “মহিলা চিত্‍কার করছিলেন। চালকের হাত ছাড়িয়ে পালানোর চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু তাঁকে মারতে মারতেই ঠেলে ট্রাকে তোলার চেষ্টা করছিল চালক,”।

সিভিক ভলেন্টিয়ার বাধা দিতে গেলে চালকের সঙ্গে তাঁর হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। চালক তখন প্রায় ট্রাকে উঠে পড়েছিল। ধাক্কা দিয়ে তাঁকে ফেলে দিয়ে মহিলাকে তুলে ট্রাকটিকে ছুটিয়ে এগিয়ে চলে যায়। চোখের সামনে এমন একটি ঘটনা ঘটতে দেখে স্থির থাকতে পারেননি বিকাশ। সঙ্গে সঙ্গে ছুটে গিয়ে কাছাকাছি থানায় গিয়ে খবর দেন। তাঁর কথা শুনে এক মুহূর্তও দেরি করেনি পুলিশ। ধাওয়া করে ওই ট্রাকটিকে। মানকর রোডের অভিরামপুরের কাছে ট্রাকটিকে আটক করে পুলিশ। ভিতরে মহিলা তখনও চিত্‍কার করে কাঁদছিলেন। সঙ্গে সঙ্গে অভিযুক্ত ট্রাক চালককে পাকড়াও করা হয় আর তারপর মহিলাকে উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত ট্রাক চালকের নাম আবুল শেখ। পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোটের কুলসোনা গ্রামের বাসিন্দা। মুর্শিদাবাদ থেকে সিমেন্ট বোঝাই একটি ট্রাক নিয়ে দুর্গাপুরের দিকে যাচ্ছিল ট্রাকটি। সিভিক ভলান্টিয়ার বিকাশ গড়াই এর এই রূপ সাহসিকতার জন্য পুরস্কার দেওয়ার কথা ভেবেছে প্রশাসন। বিকাশ জানিয়েছেন, শুধুমাত্র কর্তব্যের জন্য নয় একজন মানুষ হিসেবেও মহিলাকে উদ্ধার করা তাঁর দায়িত্ব ছিল, আর ঠিক সেটাই করেছেন তিনি, অন্য কিছু না। বিকাশ গড়াই আরও বলেন, শুধুমাত্র আইনের কড়া পাশেই এমন ঘৃণ্য অপরাধকে দমন করা সম্ভব নয়, চোখের সামনে এমন পরিস্থিতি দেখলে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে সাধারণ মানুষকেই। চোখের সামনে কারোর সাথে কোনোরকম অন্যায় হতে দেখলে এগিয়ে আসতে হবে প্রত্যেকটি মানুষকে।

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close